Porjotonlipi

রূপে ভরা কাপ্তাই (পর্ব-২)

নৈসর্গিক রূপে ভরা কাপ্তাই আমার। নদীপথে কিংবা সড়কপথে যাতায়াতের জন্য বেশ উপভোগ্য। আপনি যদি চট্টগ্রামের থাকেন এবং সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠেও যদি আপনার মনে হয় একটি ডে-ট্যুর দিয়ে আসি। তাহলে কাপ্তাই হবে আপনার জন্য সবচেয়ে ভালো সিদ্ধান্ত। কারণ বহদ্দারহাট, চট্টগ্রাম থেকে কাপ্তাই আসতে সময় লাগে মাত্র ২ ঘন্টা। কোনো ট্রাফিক জ্যাম কিংবা বারবার গাড়ি বদলানোর ঝামেলা তো নেইই বরং পাহাড়ের আঁকাবাঁকা রাস্তা দিয়ে আসতে আসতে আপনার মন হয়ে উঠবে আরো সতেজ এবং প্রাণবন্ত।

অপরূপ কাপ্তাইয়ের প্রশান্তি পার্ক

কপ্তাইয়ের প্রশান্তি পার্ক এবং তাবু নিবাস

বন বিভাগের অধীনে থাকা কাপ্তাই প্রশান্তি পার্ক ২০১৬ পর্যন্ত যা ছিলো নিস্তেজ, প্রাণহীন। কিন্তু ২০১৭তে এটি নতুন প্রাণ ফিরে পায়। কিছু যুবকের হস্তক্ষেপের মাধ্যমে এটি হয়ে উঠে বর্তমানে কাপ্তাইয়ের প্রশান্তি পার্ক সবচেয়ে আকষর্ণীয় একটি বিনোদন কেন্দ্র। প্রাকৃতিক পরিবেশে নদীর পাড় ঘেঁষে যাওয়া এমন একটি স্থান যেখানে আপনি মন খারাপ করে বসে থাকতে তো পারবেনই না বরং হয়ে উঠবেন সৃজনশীল এবং কর্মচঞল। নদীতে ভেসে চলা নৌকা, পাখির কুজন সবকিছুতেই মুগ্ধ হতে বাধ্য আপনি। শুধু তাই নয় প্রশান্তি পার্কে রয়েছে তাবু নিবাসের ব্যাবস্থাও। নদীর পাড়ে তাবুতে আপনি বিকাল থেকেই অপরুপ সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন। আর সকালবেলা প্রকৃতিই আপনাকে জাগিয়ে দিবে। এছাড়াও রয়েছে কায়াকিং এর ব্যাবস্থা। ছোট ছোট নৌকায় কর্ণফূলী ঘুরে বেড়ানোর সময়টা আপনাকে করে তুলবে আরো রোমাঞ্চিত। পরিবার কিংবা বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর জন্য কিংবা দম্পতির জন্য কাপ্তাইয়ের প্রশান্তি পার্ক নিঃসন্দেহে একটি উপভোগ্য এবং বৈচিত্র্যময় জায়গা।

যেভাবে আসবেনঃ

চট্টগ্রাম অথবা রাঙামাটির বড়ইছড়ি হয়ে আসলে আপনাকে কাপ্তাই, বালুচর নামক স্থানে নামতে হবে। রাস্তার পাশেই দেখতে পাবেন প্রশান্তি পার্ক। আর যদি রাঙামাটি কাপ্তাই লিংক রোড দিয়ে আসেন তবে লগগেইট হয়ে তবে আপনাকে বালুচর যেতে হবে।

যদি রাত্রি যাপন করতে চানঃ

যদি রাত্রি যাপন করতে চান সেক্ষেত্রে একটু সংশয় থাকতেই পারে জায়গাটি কি নিরাপদ হবে? তবে এক্ষেত্রে চিন্তার কোনো কারণই নেই কারণ এটি খুবই নিরাপদ একটি জায়গা।

 

বুকিং দিতে চাইলেঃ

জায়গাটি সম্পুর্ণ নিজেদের জন্য বুকিং দিতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই আগে থেকে কথা বলে রাখতে হবে। এক্ষেত্রে ভাড়া এবং সময় আলোচনা সাপেক্ষে নির্ধারণ করা হয়।

 

যোগাযোগঃ

০১৭৫৩২২২২৮৬/০১৮২২২২৮৬

তবে ভ্রমণের সময় অবশ্যই মনে রাখবেন, আপনার দ্বারা পরিবেশ কিংবা সেখানকার মানুষজনের যেন কোনো ক্ষতি সাধিত না হয়। নিজে ভ্রমণ করুন এবং অন্যকে ভ্রমণ করার সুযোগ করে দিন।

কন্টেন্ট রাইটারঃ শাহীন সুলতানা

Porjotonlipi

Add comment