Porjotonlipi

উত্তর সাতলার শাপলা বিল

বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার রূপের সৌন্দর্যের খ্যাঁতী সকলেরই জানা। ঠিক তেমনি বরিশালের উজিরপুর উপজেলার একটি গ্রাম আছে যার নাম সাতলা; যেটিকে শাপলার রাজধানী বললেও হয়তোবা ভুল হবে না। এই গ্রামের ৭০% অধিবাসী শাপলা চাষ এবং বিপণন করে জীবিকা নির্বাহ করে।তাই সমস্ত গ্রাম জুড়ে শুধু শাপলার চাষ হয়।এ গ্রাম থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে শাপলা সরবারহ করা হয়।

 

শাপলার সিজন: শাপলা হয় প্রায় ৯ মাস। মার্চ থেকে শুরু করে নভেম্বর পর্যন্ত শাপলার পুরো সিজন। তাই যারা শাপলা বিলের এই মনোরম দৃশ্য উপভোগ করতে চান তারা এই মার্চ থেকে নভেম্বরের মধ্যে চলে যেতে পারেন সাতলা গ্রামে।

শাপলা দেখার আদর্শ সময় ভোর থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত। এরপর শাপলা ফুল বুজে ছোট হয়ে যায়।তাই সবচেয়ে ভাল হয় রাতে গ্রামে থাকতে পারলে, তবে গ্রামে থাকতে হলে থাকতে হবে স্কুল ঘরে বা কোন গৃহস্থের বাড়িতে। আর যারা এভাবে থাকতে রাজি নন তারা রাতে বরিশাল শহরে থেকে ভোরবেলা রওনা হতে পারেন সাতলার উদ্দেশ্যে। সামনে নভেম্বর মাস প্রচুর শাপলা থাকবে বিলে। এখনও কিছু কিছু জায়গায় ফুল ফুটেছে।একটু শীত পরলে শাপলা ফুল বেশী ফুটে। তাই সামনেই আসছে শাপলা ফুলের সুন্দর দৃশ্য উপভোগ করার সুবর্ণ সুযোগ।

 

কীভাবে যাবেনঃ উত্তর সাতলা নানাভাবে যাওয়া যায়।লঞ্চে বা বাসে বা বিমানে বরিশাল গিয়ে সেখান থেকে বাসে শিকারপুর। এরপর অটোতে উত্তর সাতলা।

ঢাকা থেকে বাসে গেলে উজিরপুরের নুতনহাট নেমে সেখান থেকে অটোতে যেতে পারে।

আবার লঞ্চে গেলে সেখান থেকে মাহিন্দ্রা গাড়ীতে করে সাতলা-বাগ্ধা গ্রামে যাওয়া যায়। বরিশাল নুথুল্লাবাধ বাসস্ট্যান্ড থেকে সাতলা-বাগ্ধা গ্রামে সরাসরি বাস সার্ভিস আছে।

ঢাকা থেকে সড়কপথে আপনি ৬ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত গাবতলি বাস টার্মিনাল থেকে বরিশালের উদ্দেশ্যে বেশ কিছু বাস ছেড়ে যায়। বেশিরভাগ বাস পাটুরিয়া ঘাট অতিক্রম করে বরিশালে যায় আবার কিছু কিছু বাস মাওয়াঘাট অতিক্রম করে যায়। ঢাকা থেকে আগত বাসগুলো বরিশালের নুথুল্লাবাধ বাসস্ট্যান্ডে থেমে যায়।

ঢাকা থেকে বরিশাল চলাচলকারী বাসগুলোর মধ্যে আছেঃ

শাকুরা পরিবহণ, ঈগল পরিবহণ, হানিফ পরিবহণ ইত্যাদি।

ভাড়াঃ

এসি বাসঃ ৭০০/- টাকা

নন এসি বাসঃ ৫০০/- টাকা

লোকাল বাসঃ ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা

বি:দ্র: ভাড়া পরিবর্তনযোগ্য।

এছাড়াও যারা লঞ্চে ভ্রমণে আগ্রহী তারা নদীপথের যাত্রাও উপভোগ করতে পারেন। ঢাকার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল থেকে প্রতি ৩০ মিনিট পর পর বরিশালের উদ্দেশ্যে অনেক নান্দনিক লঞ্চ ছাড়ে। এরমধ্যে সুন্দরবন ৭, গ্রীনলাইন অন্যতম।

কোথায় থাকবেনঃ বরিশালে থাকার জন্য বেশকিছু হোটেল রয়েছে, আপনাদের সুবিধার জন্য কিছু হোটেল এর নাম উল্লেখ করা হলোঃ

হোটেল প্যারাডাইজ টু ইন্টারন্যাশনাল,

হোটেল গ্র্যান্ডপ্লাজা,

হোটেল এথেনা ইন্টারন্যাশনাল,

হোটেল হক ইন্টারন্যাশনাল।

কন্টেন্ট রাইটারঃ দেবযানী দত্ত পিয়াল। 

 

porjotonlipi-admin

Add comment