গোলাপ রাজ্য (ভ্রমণ কাহিনী)

0

 অভিজিৎ সাগর

A rose for my rose…….এটার বদলে যদি বলি  a kingdom of rose for my beautiful rose ? কেমন হবে বলুন তো?- যা হবে তা ভাবনাতেই থাকুক। তবে এই  kingdom of rose  এর ধারণা কিন্তু বাস্তব। অনেক দিন ধরে যাবো যাবো বলে একদিন হুট করেই গোলাপ গ্রাম চলে গেলাম। ভেবেছিলাম এমন আর কি থাকবে? কয়েকটা গোলাপ এর বাগান আর কিছু গাছপালা। কিন্তু ওখানে গিয়ে চোখের পলক ফেলতে ভুলে গিয়েছিলাম। যতদূর চোখ যায় শুধু লাল রঙ্গা ফুলের রানী দেখতে পেয়েছিলাম। বাগানের মাঝে ছোট ছোট আল ছিল হাঁটার জন্য। ওখানে হাঁটার সময় মনে হচ্ছিল গোলাপের সমুদ্রে সাঁতার কাটছি। পড়ন্ত বিকেলে বসে ছিলাম বাগানের মাঝখানে বানানো ছাউনিগুলোতে। মনে হচ্ছিল গোলাপ রাজ্যের সব গোলাপ প্রজারা আমার চোখকে মুগ্ধ করার উৎসবে মেতেছিল। লাল লাল পরীদের মৃদু নৃত্য মন্ত্রমুগ্ধের মত দেখছিলাম। একটু দূরেই বিশাল এক টিলা ছিল, যেটা আকর্ষণ করছিল মাদকের মত। ঢাকার এত কাছে এমন নৈসর্গিক সৌন্দর্য লুকিয়ে আছে তা আমার আগে জানা ছিল না।…

 

গোলাপ গ্রামে যাওয়ার রাস্তাও অনেক সহজ। ঢাকার মিরপুর-১ থেকে চলে যাবেন দিয়াবারি ট্রলার ঘাটে। সেখান থেকে ট্রলারে চেপে চলে যাবেন সাদুল্লাপুর। সাদুল্লাপুর নেমে রিক্সা বা অটো তে যাবেন গোলাপ গ্রাম। মূলত সাদুল্লাপুর নামলেই আপনার সামনে পড়বে গোলাপের বাগান। একটু বড় বাগান দেখতে হলে ভিতরে যেতে হবে। আপনি চাইলে গোলাপ গ্রামে উত্তরা দিয়ে যেতে পারবেন। আব্দুল্লাহপুর থেকে কিছু লেগুনা পাওয়া যায়। ওগুলোতে চেপে যাবেন বিরুলিয়া ব্রীজ। বিরুলিয়া ব্রীজ থেকে গোলাপ গ্রামে সরাসরি অটো রিক্সা চলাচল করে। ভাড়াও অনেক কম। আমরা রিজার্ভ করে গিয়েছিলাম। ১৫০ টাকা নিয়েছিল।

গোলাপ গ্রামের মজার একটা ব্যাপার লক্ষ করেছিলাম। সেখানে সব বাড়ির সাথেই লাগোয়া ছোটছোট গোলাপের বাগান আছে। ফুলের প্রতি এত ভালোবাসা এর আগে দেখা হয়নি তাই যতক্ষণ ছিলাম,  অভিভুত ছিলাম। ওহ, দুপুরের খাবারের জন্য বাজারে অনেক দোকান আছে। অনেক পদের ভর্তা দিয়ে খুব কম দামে খাওয়া-দাওয়া সেরে নিতে পারবেন। একদিনের ছোট ভ্রমনের জন্য এত্ত সুন্দর জায়গা ঢাকার আশেপাশে আর নাই।

Share.

Leave A Reply